1. adnanfahim069@gmail.com : Adnan Fahim : Adnan Fahim
  2. admin@banglarkota.com : banglarkota.com :
  3. kobitasongkolon178@gmail.com : Liton S.p : Liton S.p
  4. miraz55577@gmail.com : মোঃ মিরাজ হোসেন : মোঃ মিরাজ হোসেন
  5. ridoyahmednews@gmail.com : Ridoy Khan : Ridoy Khan
  6. irsajib098@gmail.com : Md sojib Hossain : Md sojib Hossain
  7. zahiruddin554@gmail.com : Md. Zahir Uddin : Md. Zahir Uddin
বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৯:১৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ

আপনার লেখা গল্প,কবিতা,উপন্যাস, ছড়া গ্রন্থ আকারে প্রকাশ করতে যোগাযোগ করুন। সাগরিকা প্রকাশনী ০১৭৩১৫৬৪১৬৪৷ কিছু সহজ শর্তে আমরা আপনার পান্ডুলিপি প্রকাশের দায়িত্ব নিচ্ছি।

শিরোনামঃ⚘উৎপীড়ক সব নিপাত যাক⚘ কলমেঃ মোঃ শাহ্ জালাল বিল্লাহ্।দৈনিক বাংলার কথা অনলাইন।

রিপোর্টার মোঃ মিরাজ হোসেন।
  • প্রকাশিত: শনিবার, ১ মে, ২০২১
  • ১৮ বার পড়া হয়েছে

(আন্তর্জাতিক শ্রম দিবস উপলক্ষে)
শিরোনামঃ⚘উৎপীড়ক সব নিপাত যাক⚘
কলমেঃ মোঃ শাহ্ জালাল বিল্লাহ্
তারিখঃ ০১।০৫।২০২১
⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘⚘
————————————————————————–
আলা ভোলা এই মানুষগুলো, বেশ-ভূষণে আলু থালু,
হাড় ভাঙ্গা কাজ নিত্য করে, একটু খুঁজে সুখের মুখ;
আচোট ভূমি করে কর্ষণ, প্রমোদ বৃষ্টি হবে বর্ষণ,
ফলবে ফসল এ প্রত্যাশায় শক্ত করে বাঁধে বুক।

অরত্রি সব ভূপতিরা, সব নিবেন তাই দেন পাহারা,
তোর থাকুক বা না-ই থাকুক, আমার ফসল ঘরে তোল;
দুঃখ-কষ্ট নিত্য হা-ভাত, হতাশ জীবন মাথায় যে হাত,
তোদের বেঁচে লাভ কি আছে?এবার তোরা পটল তোল।

অবিমৃশ্য শাসক গোষ্ঠী, সব পেয়েও পায় না তুষ্টি,
সুখ নিদ্রা হয় না তাদের, অট্টালিকায় করছে বাস;
শ্রমিকরা মন উজার করে, কষ্ট করে অকাতরে,
ন্যায্য হিস্যা পায় না কভু, পাচ্ছে ঠাট্টা উপহাস।

কৃষাণ,তাঁতি,জেলে,কামার, মেথর,মুচি,লেবার,চামার
শ্রমজীবী এ মানুষগুলো নিত্য দিচ্ছে উপহার;
বিদ্যা,বুদ্ধি দিয়ে কি আর, জুটবে না তো পণ্য,খাবার,
এ শ্রমিকরাই মাথার মুকুট, হীরা, মুক্তা, মণিহার!

অভিপন্ন শ্রমিক জীবন, লোভ লালসার উদ্ভাবসন,
ঐকপত্যের চায় অবসান, উৎপীড়ক সব নিপাত যাক;
কড়িয়ালদের বিবেক বুদ্ধি, লোপ পেয়েছে আত্মশুদ্ধি,
মানবতার নেই কো বালাই, চায় না শ্রমিক বেঁচে থাক।

শ্রমিকরা সব উনপাঁজুরে, মালিকপক্ষ তাই উদর পুরে,
ভোগ-বিলাসে মত্ত হয়ে ভুলে গেছেন ভেদ-বিচার;
স্বার্থ ধান্দায় বেসামাল, শ্রমিক করছেন ইস্তামাল,
বুকে তুলে নিবেন যাদের, তাদের ভাগ্যে এ আচার!

ন্যায্য টুকু পাওয়ার আশায়, পিচঢালা পথ রক্তে ভাসায়,
বুক ফাঁটিয়ে দেয় শ্লোগান, ” আমার পাওনা আমায় দে;”
ফন্দিবাজীর ঘুরছে লাটাই,ক্ষোভে করেন শ্রমিক ছাঁটাই,
টান তো দেখি জেলের ঘানি, পারলে এবার চেয়ে নে।

ঘাম ঝরানো শ্রমিকের ধন, কাঙালিভোজ, অনুরঞ্জন,
নিজ সন্তানদের মানুষ করো, জীবন গড়াও প্রবাসে;
অসৎ ধনে অমানুষ হয়, বাবা,মা,দেশ সব ভুলে যায়,
রোগে-শোকে পাও না কাছে, মৃত্যুর সময় নেই পাশে।

দিচ্ছে শ্রম পেয়েও আঘাত, নেই যে কষ্ট নেই অজুহাত,
জীবনবাজির যুদ্ধ করে বিত্তবানদের মন ভরাণ;
দালান ভেঙ্গে চাঁপা পড়ে! অগ্নিকাণ্ডে নিত্য পোড়ে!
বাঁচার স্বপ্ন,আশা ছেড়ে ভীষণ কষ্টে যায় পরাণ!

শ্রমিকদের নেই অনুশয়, কীসের ঝুঁকি, মৃত্যু ভয়,
পেটপুরে ভাত খেয়ে পরে চিত্তসুখে নিদ্রা যায়;
বিত্তবানদের এতো আছে, রোগ ভয়ে সব রাখেন পাছে,
দুঃশ্চিন্তার সব পাহাড় চাপে, বাঁচবার আছে কি উপায়?

অন্যের মুখের অন্ন নিয়ে, উদরপূর্তি করতে গিয়ে,
ভাবছো কভু সামনে আছে মহান স্রষ্টার রোষানল?
এত ধনে কী আসে যায়, ছোট্ট পেটে কে কত খায়,
মৃত্যুর পরে অর্থ-কড়ি লাগবে কীসে এ শক্তি-বল?

শ্রমিক যারা টানছে ঘানি, তাদের পক্ষে নবীর বাণী,
“ঘাম শুকানোর আগেই তাদের ন্যায্য পাওনা দিয়ে দাও,
তুমি যা খাও তাদেরও দিবে, রোগে,শোকে যত্ন নিবে,
সৃষ্টির সেরা জীব যে তুমি বিচার দিনে কি মুক্তি চাও?

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সাগরিকা প্রকাশনী ও বই বিপণি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত