1. adnanfahim069@gmail.com : Adnan Fahim : Adnan Fahim
  2. admin@banglarkota.com : banglarkota.com :
  3. kobitasongkolon178@gmail.com : Liton S.p : Liton S.p
  4. miraz55577@gmail.com : মোঃ মিরাজ হোসেন : মোঃ মিরাজ হোসেন
  5. ridoyahmednews@gmail.com : Ridoy Khan : Ridoy Khan
  6. irsajib098@gmail.com : Md sojib Hossain : Md sojib Hossain
  7. zahiruddin554@gmail.com : Md. Zahir Uddin : Md. Zahir Uddin
বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৯:১২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ

আপনার লেখা গল্প,কবিতা,উপন্যাস, ছড়া গ্রন্থ আকারে প্রকাশ করতে যোগাযোগ করুন। সাগরিকা প্রকাশনী ০১৭৩১৫৬৪১৬৪৷ কিছু সহজ শর্তে আমরা আপনার পান্ডুলিপি প্রকাশের দায়িত্ব নিচ্ছি।

কবিতাঃ চিতা কলমেঃ অরুণ বর্মন।দৈনিক বাংলার কথা অনলাইন।

রিপোর্টার মোঃ মিরাজ হোসেন।
  • প্রকাশিত: রবিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২১
  • ৬০ বার পড়া হয়েছে

দৈনিক কবিতা প্রতিযোগিতা
কবিতাঃ চিতা
কলমেঃ অরুণ বর্মন
তারিখঃ ২৫/০৪/২০২১

প্রজ্বলিত অগ্নিশিখা শেষ যাত্রার আত্মহুতিতে প্রস্তুত,
তীব্র অগ্নির দাহ্যশক্তি প্রস্তুত কলেবরেকে শুন্যে মিলাতে।
চার স্তম্ভের বেস্টনিতে দাউ দাউ জ্বলে
চন্দন, তেঁতুল, বাবলা, শিরিষ—
মধ্যে উলঙ্গ শরীর নিস্প্রভ,নির্বিকার, ভাবলেশহীন।
আগুনের লেলিহান শিখা আকাশ ছুঁই ছুঁই।
কী নির্মম নিয়ম! উত্তরাধিকাররা কি না—!
প্রথমেই করে মুখাগ্নি, জ্বলে উঠে মুখমন্ডল,
ফুৎকারেই উধাও চুলগুলো।
সত্য, মিথ্যা, অহম, লালসার কেন্দ্রবিন্দু মুখগহ্বর‌
পুড়তে থাকে ধিক ধিক করে।
তারপর !, তারপর—–
চিন্তার আবাসভূমির দগ্ধ হতে শুরু করে,
গলিত লাভা যেন হোমাগ্নিতে ঘৃতাহুতি দিতে থাকে।
পটপট শব্দে ডোমেরা উল্লাসে মেতে উঠে!
বাতাসের অনুকণিকারা লুটোপুটি খেতে থাকে
শরীরের পোড়া গন্ধের ম ম সৌরভে।
এবার! এবার—-
ভালো মন্দ কর্মের বাহন হস্তযুগল
যাতায়াতের বাহন পদযুগল
কামদেবের বাহন কামাঙ্গ একে একে ছাই হয়ে যায়।
উঃ! কী দুঃসহ যন্ত্রণা! দেহটি মোচড় দিয়ে উঠে।
সবশেষে জ্বলে উঠে সুঠাম সুন্দর সুতন্বিখানি
ধীরে ধীরে হৃদপিন্ডটা লাল দগদগে হয়।
ভালোবাসাগুলো কাঠের কানে কানে বলে উঠে
শেষ পর্যন্ত আমাকে পুড়িয়ে কয়লা করলি রে?
তবু আমি তোর কয়লাতে মিশে
নদীকে ভালোবেসে বেঁচে থাকব অনন্তকাল।
ধুমায়িত ভস্ম উড়ে মিশে যায় বাযুর ক্রোড়ে,
তিলক এঁকে দেয় গগন ললাটে।

অগ্নির এত দাপট, ভষ্মিভূত করার এত ক্ষমতা
তবু দগ্ধ করতে পারে না নাভিমূলকে।
পারবে না তো! ও যে মায়ের নাভীমূল থেকে আসা।
মাতৃজঠরে মায়ের নাভীমূলের সাথে বন্ধন থাকা নাভীমূলটুকু ফিরে যায় মায়ের কাছেই।

অবিনশ্বর আত্মা ঘাপটি মেরে রয় বায়ুর অলিন্দে
ভষ্মিভূত হতে দেখে,
জাত, পাত, ধর্ম, দম্ভ, বংশমর্যদা, আত্মঅহমিকাকে।
কালের স্বাক্ষী মুহূর্তে হয়ে যায় কালোত্তীর্ণ।
ভষ্মীভূত হয় জগতের কাঠামোবদ্ধ অবয়ব।

মানব জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ তীর্থ চিতা যেখানে
হিংসা, বিবাদ, লোভ, ক্ষোভ, বিদ্বেষ হয় ধূলিসাৎ
ধনী, গরীব, রাজা, প্রজা রয় এক বিছানায় শুয়ে।
এই তো চিতা! যা এক পবিত্র তীর্থভূমি,
যার নাম স্মরণেই
মানব হৃদয় ভূমিতে পবিত্রতার প্লাবন বর্ষিত হয়।
ভুলে যায় পার্থিব জীবনের ভালো মন্দ,
মন চলে যায় অপার্থিব অনুভুতির সীমান্তে।

Copyright@Arun_Barmon

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সাগরিকা প্রকাশনী ও বই বিপণি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত