1. adnanfahim069@gmail.com : Adnan Fahim : Adnan Fahim
  2. admin@banglarkota.com : banglarkota.com :
  3. kobitasongkolon178@gmail.com : Liton S.p : Liton S.p
  4. miraz55577@gmail.com : মোঃ মিরাজ হোসেন : মোঃ মিরাজ হোসেন
  5. ridoyahmednews@gmail.com : Ridoy Khan : Ridoy Khan
  6. irsajib098@gmail.com : Md sojib Hossain : Md sojib Hossain
  7. zahiruddin554@gmail.com : Md. Zahir Uddin : Md. Zahir Uddin
শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০৮:৫৪ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ

আপনার লেখা গল্প,কবিতা,উপন্যাস, ছড়া গ্রন্থ আকারে প্রকাশ করতে যোগাযোগ করুন। সাগরিকা প্রকাশনী ০১৭৩১৫৬৪১৬৪৷ কিছু সহজ শর্তে আমরা আপনার পান্ডুলিপি প্রকাশের দায়িত্ব নিচ্ছি।

একটি শিক্ষনীয় ছোটগল্পঃ দৃষ্টান্ত লেখকঃ মোহাম্মদ সোয়াইব ফারুকী।বাংলার কথা অনলাইন।

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: বুধবার, ২১ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৩১ বার পড়া হয়েছে

একটি শিক্ষনীয় ছোটগল্প

দৃষ্টান্ত

মোহাম্মদ সোয়াইব ফারুকী

সময়টা ১২ ই এপ্রিল সারারাত মুষলধারে বৃষ্টি রাত পেরিয়ে সকাল হলো একটু একটু সূর্যের দেখা মিলল পূর্ব আকাশে অনেক দিন হলো স্কুল বন্ধ মহামারীর কারনে বাসা থেকেও বের হতে পারি না। কিন্তুু একদিন আমরা তিন বন্ধু মিলে সিদ্ধান্ত নিলাম যে কোথাও ঘুরতে যাব সবাই একমত পোষন করলাম আমরা বিকাল ৩ টার দিকে বাসা থেকে বের হলাম কিছু দূর যাওয়ার পর আমারা দেখলাম অনেক গাছপালা ভেঙ্গে পড়ে গেল আর বিদ্যুৎতের তার মেরামত এর দৃশ্য দেখতে দেখতে আমরা অনেক দূর এগিয়ে গেলাম পথে ঘাটে মানুষের তেমন আনাগোনা নাই কারন দেশে লকডাউন চলছে মাঝে মাঝে কিছু মানুষ চোখে পড়ে হাঁটতে হাঁটতে আমাদের চোখে পড়ল একটা মানিব্যাগ আর আমরা ব্যাগটি তুলে নিলাম আর আমাদের বেশিদূর যাওয়া হল না ব্যাগটি নিয়ে চলে এলাম লক্ষন দাদার দোকানে আমরা তিনজন মিলে সিদ্ধান্ত নিতে থাকলাম কীভাবে ব্যাগটি আমরা মালিকের কাছে ফিরিয়ে দিতে পারি আমরা কিন্তুু কাউকে বলি নায় ব্যাগ কুঁড়িয়ে পাওয়ার কথাটি আমরা শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত নিলাম যে আমরা কিছু টাকা নিজেরা তুলে কালকে সংবাদপএে ছাপিয়ে দিব এমনে করে দিনটি শেষ হলো পরদিন আমরা কিছু টাকা নিয়ে সংবাদপএে ছাপানোর জন্য গেলাম আমাদের কুঁড়ে পাওয়া ব্যাগটিতে ছিল কিছু টাকা আর জাতীয় পরিচয় পএ সংবাদপএে ছাপানোর জন্য আমাদের কাছ থেকে টাকা নেয় নায় আমরাও বেশ খুশি হলাম তিন বন্ধু মিলে আমরা সেই টাকা দিয়ে মিষ্টি খেলাম সংবাদপত্রে প্রকাশ করার সময় আমরা একটি মোবাইল নাম্বার দিয়েছিলাম রাসেলের আমাদের তিনজনের মধ্যে রাসেল অনেক বুদ্ধিমান ছিল তাই আমরা তার কথা সবসময় মেনে চলতাম তার মোবাইল এর মধ্যে প্রতিদিন অনেক কল আসতে লাগল অনেকে লোভে পড়ে কল দিচ্ছে যেহেতু আমরা বলছিলাম মানিব্যাগটাতে কিছু টাকা আছে অনেকে অনেক রকমের কথা বলতে লাগল রাসেলকে কিন্তুু প্রকৃত মালিককে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না আমি আর আমার আব্বু একদিন বাজারে যাচ্ছিলাম একটা রিকশায় করে আব্বুর সাথে রিকশাওয়ালা অনেক কথা বলতে লাগল কথার এক পর্যায়ে রিকশাওয়ালা বলল যে ভাইজান কিছুদিন আগে বৃষ্টির মধ্যে রিকশা চালাচ্ছিলাম হঠাৎ করে আমার লুঙ্গি থেকে আমার মানিব্যাগটা পড়ে গেল আবার তার পরেরদিন খুঁজতে এসে পেলাম না কথা বলতো বলতে আমরা বাজারের কাছে চলে আসলাম আর আব্বু রিকশা থেকে নেমে বাজারের দিকে যাচ্ছে আর আমি রিকশাওয়ালা থেকে তার নাম্বারটি নিলাম আর আমি সম্পূর্ণ ঘটনা বাসায় এসে রাসেলকে খুলে বললাম সে বলল আমাকে নাম্বারটা দাও সে রিকশাওয়ালাকে কল দিল এবং বলল আমাদের সাথে একটু দেখা করতে আর রিকশাওয়ালা আমাদের সাথে দেখা করার জন্য লক্ষন দাদার দোকানের কাছে আসল আমরা তিনবন্ধু সেখানে উপস্থিত ছিলাম তার পরনে ছিল একটা লুঙ্গি আর একটা ছেঁড়া শার্ট আমার তাকে দেখে খুব কষ্ট হলো তার কথা সবকিছু মিলে গেল তাই তাকে আমরা সেই মানিব্যাগটা ফিরিয়ে দিলাম সে আমাদেরকে বলল বাবা মেয়ের বিবাহের জন্য টাকাগুলো জমায় ছিলাম তোমরা দীর্ঘয়ু হও আর আমাদের মাথায় সে হাত বুলিয়ে দিল আর কান্নাস্বরে বলল যাই বাবারা দোয়া করিও আমার জন্য একটু।

আশা করি আমার ক্ষুদ্র মেধায় লিখা এই ছোট গল্পটি পড়ে কিছু শিখতে পারবেন আর প্রকাশ করলে সাগরিকা প্রকাশনীর কাছে চির কৃতজ্ঞ থাকব আর আমি ধন্যবাদ জানাই প্রিয় আঙ্কেল এবং প্রকাশনীকে আমাদের এতো ছোট বয়স থেকে প্রকাশ করার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য। 📝

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সাগরিকা প্রকাশনী ও বই বিপণি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত