1. adnanfahim069@gmail.com : Adnan Fahim : Adnan Fahim
  2. admin@banglarkota.com : banglarkota.com :
  3. kobitasongkolon178@gmail.com : Liton S.p : Liton S.p
  4. miraz55577@gmail.com : মোঃ মিরাজ হোসেন : মোঃ মিরাজ হোসেন
  5. ridoyahmednews@gmail.com : Ridoy Khan : Ridoy Khan
  6. irsajib098@gmail.com : Md sojib Hossain : Md sojib Hossain
  7. zahiruddin554@gmail.com : Md. Zahir Uddin : Md. Zahir Uddin
শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ

আপনার লেখা গল্প,কবিতা,উপন্যাস, ছড়া গ্রন্থ আকারে প্রকাশ করতে যোগাযোগ করুন। সাগরিকা প্রকাশনী ০১৭৩১৫৬৪১৬৪৷ কিছু সহজ শর্তে আমরা আপনার পান্ডুলিপি প্রকাশের দায়িত্ব নিচ্ছি।

শুভ জন্মদিন….. ওয়াহিদা রেহমান।বাংলার কথা অনলাইন।

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, ৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১২৯ বার পড়া হয়েছে

১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ রাত্রিতে বাংলাদেশে গণহত্যা শুরু হলে মুম্বাইয়ের অধিকাংশ সংবাদপত্র এর সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হয়। মুম্বাইয়ের পেশাজীবী সচেতন মানুষ বাংলাদেশে গণহত্যার প্রতিবাদে ঐক্যবদ্ধ হন।

বাংলাদেশকে সহায়তা করার লক্ষ্যে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে তারা মুম্বাইয়ের সাংবাদিক সুব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাসায় সমবেত হন। সভায় আলোচনাক্রমে মহারাষ্ট্রে ‘বাংলাদেশ এইড কমিটি’ গঠনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। কমিটির সভাপতি, সহ-সভাপতি ও অনারেরি সেক্রেটারি মনোনীত হন যথাক্রমে মুম্বাইয়ের ব্যবসায়ী হরিশ মহেন্দ্র, সাংবাদিক সলিল ঘোষ এবং ওয়াহিদা রেহমান।

কমিটি মুক্তিযুদ্ধে সমর্থন দানের লক্ষ্যে নানাবিধ ভূমিকা গ্রহণ করে এবং সেখানে ওয়াহিদা রেহমানের ছিল অতুলনীয় অবদান। ওয়াহিদা রেহমানকে বাংলাদেশের প্রবাসী সরকার একটি চিঠি পাঠায়। চিঠির বার্তাবাহক নূরুল কাদিরের মুখে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর অত্যাচার ও গণহত্যার বিবরণ শুনে তিনি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। বার্তাবাহককে মহারাষ্ট্রের তৎকালীন গভর্নর এবং বাংলাদেশ এইড কমিটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক নবাব আলী ইয়ার জংয়ের সঙ্গে সাক্ষাতের ব্যবস্থা করেন। তিনি স্বল্পতম সময়ে মুম্বাই চেম্বার অব কমার্স অ্যাণ্ড ইণ্ডাাস্ট্রিজের সভাপতি, মুম্বাই হাইকোর্টের ব্যারিস্টার, প্রখ্যাত ইংরেজি সাপ্তাহিক ব্লিৎজ সহ মুম্বইয়ের বিভিন্ন সংবাদপত্রের সম্পাদকের কাছে ফোন করে, কখনও সরাসরি গিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে জনমত গঠনে তৎপরতা চালান। বুদ্ধিজীবী, শিল্পপতি, সম্পাদক এবং মহারাষ্ট্র প্রশাসনের কর্তাব্যাক্তি, যাদের ওপর ওয়াহিদা রহমানের ছিল প্রচ্ছন্ন প্রভাব, তাদের কাছেও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রতি সমর্থন আদায়ের জন্য যান। তিনি অসাধারণ সাংগঠনিক দক্ষতায় বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের পক্ষে জনমত গঠন ছাড়াও মুম্বাইয়ের চলচ্চিত্রাঙ্গনের সবাইকে মুক্তিযুদ্ধে সহায়তায় এগিয়ে আসতে অনুপ্রাণিত করেন।

আজ এই সেই কিংবদন্তি অভিনেত্রী ওয়াহিদা রেহমানের ৮৩ তম জন্মদিন,শুভকামনা রইলো। ক্যারিয়ারে রয়েছে গাইড,অভিযান,রেশমা অউর শেরা,নীল কমল,খামোশি,পিয়াসা,তিসরি কসম,কাভি কাভি,ত্রিশূল,১৫ পার্ক এভিনিউ,রঙ দে বাসন্তি সহ বহু বিখ্যাত ছবি,পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কার।

শুভ জন্মদিন….. ওয়াহিদা রেহমান <3

পুনশ্চঃ মহান মুক্তিযুদ্ধকালীন ওয়াহিদা রেহমানের কোন ছবি খুঁজে পাইনি। কিন্তু আজ জন্মদিনে আমাদের মুক্তিযুদ্ধে উনার অসামান্য অবদান কে শ্রদ্ধা জানাতে ২০১৪ সালে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া ‘মুক্তিযুদ্ধ মৈত্রী সম্মাননা’ গ্রহণকালের ছবি দিতে হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সাগরিকা প্রকাশনী ও বই বিপণি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত